বায়ুর ক্ষয়কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপের বর্ণনা দাও।

বায়ুর ক্ষয়কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপের বর্ণনা এই লেখাটিতে আলোচনা করা হল। দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য এগুলি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। আশা করি এগুলি তোমাদের পরীক্ষার প্রস্তুতিতে সহায়তা করবে। তোমরা নিজেরা মনোযোগ সহকারে পড়ো এবং প্রশ্নগুলো তোমাদের বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করো।

ভূমিকা:

বায়ুর কার্যের প্রভাব সবচেয়ে বেশি লক্ষ করা যায় শুষ্ক মরু অঞ্চলে। এই অঞ্চলে বায়ুর ক্ষয়কার্যের ফলে সৃষ্ট ভূমিরূপগুলি সম্পর্কে নিম্নে আলোচনা করা হল – 

1. ইয়ার্দাং:

               মরু অঞ্চলে বায়ুর গতিপথে কঠিন ও কোমল শিলাস্তর পর্যায়ক্রমে ভূপৃষ্ঠে উল্লম্বভাবে অবস্থান করলে বায়ুর অবঘর্ষের ফলে কোমল শিলা স্তরগুলি দ্রুত ক্ষয়প্রাপ্ত হয় এবং সুড়ঙ্গের মতো অবস্থান করে। অপরদিকে কঠিন শিলা স্তরগুলি তুলনামূলক ভাবে কম ক্ষয় হয়ে পরস্পর বিচ্ছিন্ন হয়ে বিচিত্র আকৃতির শৈলশিরার মতো খাড়া দেওয়াল যুক্ত উচ্চভূমি গঠিত হয়। এই উচ্চ ও খাড়া ঢাল যুক্ত ভূমিরূপকে ইয়ার্দাং বলে।  ‌‌‌‌‌‌‌

যেমন – মধ্যসাহারা, মিশর, ইরানের লুটমরু, সৌদি আরবের মরু অঞ্চলে প্রভৃতি জায়গায় এই ভূমিরূপ দেখা যায়। 

✓ ক্ষয়ের ফলে ইয়ার্দাং আরও তীক্ষ্ম হলে তাকে নিডিল বলে।


2. জুগ্যান বা জিউগেন:

                 মরু ও মরুপ্রায় অঞ্চলে যেসব স্থানে উপরের স্তরে ফাটল যুক্ত কঠিন শিলা ও নীচের স্তরে কোমল শিলা থাকে, সেখানে বায়ুর অবঘর্ষ প্রক্রিয়ার ফলে কোমল শিলাস্তর ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে গহ্বরের আকার ধারণ করে এবং কঠিন শিলা গঠিত অংশ চ্যাপ্টা ও সমতল শীর্ষদেশ বিশিষ্ট পরস্পর সমান্তরাল টিলার আকারে অবস্থান করে। এই প্রায় সমতল শীর্ষদেশ বিশিষ্ট ভূমিরূপকে জুগ্যান বা জিউগেন বলে।

   যেমন – ক্যালিফোর্নিয়ার মোজাভ মরুভূমি, আফ্রিকার কালাহারি প্রভৃতি মরুভূমিতে এই ভূমিরূপ দেখা যায়।

3. গৌর:

           বায়ুর অবঘর্ষ প্রক্রিয়ায় গঠিত ভূমিরূপ গুলির মধ্যে গৌর উল্লেখযোগ্য। মরুভূমিতে অবঘর্ষের ফলে বৃহদাকৃতির শিলাখন্ডের নিম্নাংশ যত বেশি ক্ষয়প্রাপ্ত হয় ঊর্ধ্বাংশ তত হয় না। কঠিন ও কোমল শিলা স্তরে এই ধরনের বৃহদায়তন শিলাখন্ড গঠিত হলে এবং নীচের দিকে যদি কোমল শিলাস্তর থাকে, তাহলে বায়ুর ক্ষয়কার্যের ফলে নীচের অংশ দ্রুত ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে সরু হয়ে যায় ও ওপরের অংশ কম ক্ষয় হয়ে অনেক বিস্তৃত অবস্থায় দাঁড়িয়ে থাকে। ব্যাঙের ছাতার মতো দেখতে এই ভূমিরূপকে গৌর বলে।

   যেমন – সাহারা, ইরান, জার্মানি প্রভৃতি দেশের মরুভূমি অঞ্চলে গৌর দেখা যায়।

4. ইনসেলবার্জ:

              দীর্ঘকাল ধরে বায়ু ও ওয়াদি গুলির ক্ষয়কার্যের ফলে সমগ্ৰ মরু অঞ্চলে সাধারণ উচ্চতা কমে গিয়ে সৃষ্ট সমপ্রায় ভূমির মাঝে বিক্ষিপ্তভাবে কঠিন শিলা দ্বারা গঠিত অংশগুলি কোনোক্রমে ক্ষয়কার্য প্রতিরোধ করে অনুচ্চ ও পরস্পর সমান উচ্চতা বিশিষ্ট টিলার আকারে দাঁড়িয়ে থাকে। এই ধরনের ক্ষয়জাত পাহাড় বা টিলাকে ইনসেলবার্জ বলে। 

       যেমন – দক্ষিণ আফ্রিকার কালাহারি মরুভূমিতে এইরূপ ভূমিরূপ দেখা যায়।

5. পেডিমেন্ট:

             মরু অঞ্চলে পর্বতের পাদদেশসমূহ যখন বায়ুর অবঘর্ষ প্রক্রিয়া ও মরু অঞ্চলের অস্থায়ী জলধারা বা ওয়াদি গুলির ক্ষয়কার্যের ফলে ক্রমাগত ক্ষয়প্রাপ্ত হয়ে একটি প্রস্তরময় সমভূমিতে পরিণত হয় তখন তাকে পেডিমেন্ট বলা হয়।

    যেমন – উত্তর আফ্রিকার আটলাস পার্বত্য অঞ্চলের পাদদেশে পেডিমেন্ট দেখা যায়।

6. ড্রেইকান্টার:

             মরুভূমির কোনো প্রস্তরখন্ড যদি বিভিন্ন ঋতুতে প্রবাহিত ভিন্নমুখী বায়ুপ্রবাহের দ্বারা অবঘর্ষ প্রক্রিয়ায় দীর্ঘকাল ক্ষয় হয়ে ত্রিকোণাকার বা ক্ষুদ্র পিরামিড আকৃতি ধারণ করে, তাকে ড্রেইকান্টার বলে।

যেমন – সাহারা মরুভূমিতে ড্রেইকান্টার দেখা যায়।

7. ভেন্টিফ্যাক্ট:

             মরু অঞ্চলে বায়ুর অবঘর্ষের ফলে যখন শিলার প্রতিবাত পার্শ্ব মসৃণ ও ধারালো হয়ে যায় তখন সেই শিলাকে ভেন্টিফ্যাক্ট বলে। 

    যেমন – কালাহারি মরুভূমিতে ভেন্টিফ্যাক্ট দেখা যায়।

8. মেসা ও বিউট:

                  বায়ু ও জলধারার মিলিত কার্যে মরুভূমি অঞ্চলের উচ্চ মালভূমি ক্ষয় হয়ে বিচ্ছিন্ন ভাবে টেবিলের মতো অবস্থান করলে তাকে মেসা বলে। মেসা ছোটো আকৃতির হলে তাকে বিউট বলে। 

9. অপসারণ গর্ত:

         মরু অঞ্চলের বালুকারাশি বৃষ্টি ও উদ্ভিদের অভাবে আলগা অবস্থায় থাকে। অনেক সময় বায়ুর আঘাতে বালুকারাশির অপসারণের ফলে ভূপৃষ্ঠে সুবিশাল গর্ত সৃষ্টি হয়, একে অপসারণ গর্ত বা অবনমিত অঞ্চল বা ব্লো আউট বলে।

      যেমন – পশ্চিম মিশরের কাতারা পৃথিবীর বৃহত্তম অপসারণজাত অবনমিত স্থান(3200 বর্গকিলোমিটার ও 134 মিটার গভীর)।

10. ফারো:

         মরু অঞ্চলে প্রবল বেগে প্রবাহিত বায়ুর সাথে নানা আকৃতির অসংখ্য শিলা খন্ড থাকে। এইসব শিলা খন্ডের সাথে মরুতে দন্ডায়মান শিলার ঘর্ষণে দন্ডায়মান শিলার গায়ে ফালি ফালি দাগের সৃষ্টি হয়। এগুলিকে ফারো বলে।

This post was updated on 2023-02-22 17:57:40.

Leave a Comment

error: Content is protected !!