বিকল্প সেচ পদ্ধতি গুলি আলোচনা কর।

বিকল্প সেচ পদ্ধতি গুলি এই লেখাটিতে আলোচনা করা হল। একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। আশা করি এটি তোমাদের পরীক্ষার প্রস্তুতিতে সহায়তা করবে। তোমরা নিজেরা মনোযোগ সহকারে পড়ো এবং প্রশ্নগুলো তোমাদের বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করো।

বিকল্প সেচপদ্ধতি:

a. বৃষ্টিপাতের বন্টন অনুসারে শস্য নির্বাচন:

প্রাচীন পদ্ধতি অনুসারে বিভিন্ন ঋতুতে এমন শস্য চাষ করা হয় যখন ওই চাষে জল বেশি লাগে। এই অবস্থায় জলের জোগানের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে জলের চাহিদা কম এমন শস্য চাষ করা যেতে পারে।

b. জলের পুনর্নবীকরণ ওষ্ঠ ঠিক সময়ে সেচ:

একই জলকে দূষণমুক্ত করে বারবার ব্যবহার করা যায়। ফলে জলের অপচয় কম হয়। ইজরাইলে এই পদ্ধতিতে সেচের মাধ্যমে কৃষি ব্যবস্থাকে লাভজনক কাজে পরিণত করা সম্ভব হয়েছে।

c. শক্ত মাটিতে সেচের জন্য লম্বা অগভীর খাত তৈরি করা:

এই পদ্ধতিতে জল সহজেই শক্ত এঁটেল বা কাদামাটির মধ্যে পৌঁছে যায়। শক্ত মাটির সবথেকে উপরের স্তরে অগভীর আঁচড় বা খাত কেটে দেওয়া হলে মাটির উপরে জল বেশিক্ষণ জমে থাকতে পারে না।ফলে বাষ্পীভবনের মাধ্যমে জল কম নষ্ট হয়।

d. ডাইক নির্মাণ করা:

অল্প জলে সেচ ঠিকমতো দিতে হলে অনেক ক্ষেত্রেই ছোটো ছোটো প্লটে ডাইক বা ছোট ছোট বাঁধ বেঁধে জল আটকে রাখতে হয়। এর ফলে জলের অপচয় কম হয় ও নীচু জমিতে জল জমে থাকার সমস্যা হ্রাস পায়।

e. মালচিং পদ্ধতি:

এই পদ্ধতিতে আর্দ্র মাটির জল যাতে বাষ্পীভবনের মাধ্যমে দ্রুত নষ্ট না হয়, সেজন্য ভিজে খড়, পাতা দিয়ে মাটির উপরে চাপা দিতে হয়। এর ফলে মাটির ভিজে ভাব বজায় থাকে ও মাটির জলের চাহিদা কমে।

f. জমির উঁচু-নিচু জায়গাগুলিকে কেটে বাদ দেওয়া:

এই পদ্ধতিতে জমির এবড়ো খেবড়ো, উঁচু-নীচু অবস্থাকে কেটে সমান উচ্চতায় আনা হয়। ফলে চাষের জন্য সেচের জল সর্বত্র সমানভাবে পৌঁছে যায় এবং জলের অপচয় কম হয়।

g. স্বল্প সময়ে দ্রুত চাষ:

জলদি দাঁতের শস্য, ফুল, ফল অল্প জলে চাষ করা হয়। এই চাষে জলের চাহিদা কম।

h. শুষ্ক শস্যের চাষ বা ড্রাই ফার্মিং:

জলের যোগান যেখানে যেখানে অনিশ্চিত সেখানে শুখা মরশুমে উপযুক্ত শস্য চাষ করা হয়। জমির চরিত্র ও জলের যোগান অনুসারে চাষের জন্য শস্য নির্বাচন করা উচিত।

✓ ক্যারেজ বা কারেজ সেচ ব্যবস্থা কী?

পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম পাহাড়ি অঞ্চলে বিশেষত বালুচিস্তানে সুদীর্ঘকাল ধরে এক বিশেষ ধরনের কূপ ব্যবস্থার মাধ্যমে জলসেচ করা হয়, একে ক্যারেজ সেচ ব্যবস্থা বলে। ক্যারেজ সেচ ব্যবস্থাকে পারস্য ভাষায় কারিজ সেচ ব্যবস্থাও বলা হয়।

এই সেচ ব্যবস্থার মূল পদ্ধতি হল পাহাড়ের ঢাল বরাবর সারিবদ্ধভাবে অনেকগুলি উল্লম্ব কুয়ো খনন করা হয়। কুয়োগুলোর তলদেশ একে অন্যের সাথে সুড়ঙ্গের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে থাকে। পাহাড়ে বৃষ্টি হলে ঐ জল কুয়োর মধ্যে এসে পড়ে এবং সুড়ঙ্গপথে ঐ জল পাদদেশে চাষের জমিতে এসে পৌঁছায়।

This post was updated on 2023-02-22 17:56:38.

নমস্কার , আমরা দেবলীনা ও শুভদীপ । আমি ওয়েবসাইটের লেখক, আমি ভূগোলে স্নাতক করেছি। আমার উদ্দেশ্য শিক্ষক এবং ছাত্র উভয়ের জন্য ভূগোলের গুণমান নোট এবং উপাদান শেয়ার করা এবং আমার দিক থেকে সর্বোপরি সাথে থাকা।

Leave a Comment

error: Content is protected !!