অভ্রের আকরিকগুলি লেখ। অভ্রের ব্যবহার লেখ। অভ্রের বিশ্ববন্টন লেখ। ভারতে অভ্র উৎপাদক অঞ্চলগুলি লেখ।

অভ্রের আকরিকগুলি, অভ্রের ব্যবহার, অভ্রের বিশ্ববন্টন এবং ভারতে অভ্র উৎপাদক অঞ্চলগুলি এই লেখাটিতে আলোচনা করা হল। একাদশ শ্রেণীর শিক্ষার্থীদের জন্য এগুলি গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। আশা করি এগুলি তোমাদের পরীক্ষার প্রস্তুতিতে সহায়তা করবে। তোমরা নিজেরা মনোযোগ সহকারে পড়ো এবং প্রশ্নগুলো তোমাদের বন্ধুদের সঙ্গে শেয়ার করো।

অভ্রের আকরিক:

অভ্রের আকরিক গুলি হল –

আকরিকের নামআকরিকের রং
মাসকোভাইটসাদা বা অল্প নীল
বায়োটাইটগাঢ় সবুজ বা কালো
ফ্লগোপাইটবাদামি
লেপিডোলাইটতামাটে বা হালকা গোলাপি
প্যারাগোনাইটহালকা হলুদ, ধূসর বা ধূসর সাদা
জিনওয়ালডাইটধূসর বাদামি, হলদে বাদামি গাঢ় সবুজ

অভ্রের ব্যবহার:

অধাতব খনিজ গুলির মধ্যে অভ্রের ব্যবহার সর্বাধিক। অভ্র বিদ্যুতের অপরিবাহী তাপ সহনশীল অদ্রাব্য স্থিতিস্থাপক ও নমনীয় পদার্থ হওয়ায় এর ব্যবহারিক গুরুত্ব সর্বাধিক।

1. বিদ্যুৎ শিল্পে ব্যবহার:

অভ্র বিদ্যুতের অপরিবাহী বলে বৈদ্যুতিক শিল্পে এর ব্যবহার গুরুত্বপূর্ণ। এটি দারুন তাপ সহ্য করতে পারে। মাত্র 1 মিলিমিটার পুরু অভ্রের পাত অনায়াসে 1000 থেকে 1500 ভোল্ট বিদ্যুৎশক্তিকে এবং 1000°c পর্যন্ত তাপ সহ্য করতে পারে।

2. আণবিক শক্তি উৎপাদনে:

আণবিক শক্তি বিকিরণের ক্ষেত্রে অভ্রের ব্যবহার অপরিহার্য। আণবিক শক্তি উৎপাদন কেন্দ্রের ইনসুলেটর হিসেবে অভ্র ব্যবহার করা হয়।

3. রেডিও, টেলিফোন, টেলিভিশন, ইলেকট্রিক ইস্ত্রি, হিটার, গ্রামোফোনের শব্দযন্ত্র ইত্যাদি তৈরির কাজে অভ্র ব্যবহৃত হয়।

4. মোটরগাড়ি ও বিমানপোত নির্মাণ করতে অভ্র লাগে।

5. অভ্র গুঁড়ো করে রবারের সঙ্গে মিশিয়ে টেকসই গাড়ির চাকা তৈরি করা হয়।

6. প্রচন্ড উত্তপ্ত চুল্লির ঢাকনা, হ্যাজাক বা আলোর চিমনি ইত্যাদি তৈরিতে অভ্র লাগে।

অভ্রের বিশ্ব বন্টন:

দেশউত্তোলক অঞ্চলউত্তোলনের পরিমাণ
(হাজার মেট্রিক টন
)
1. চিননৈইনেঙ্গু, জিজ্যাং, হেবেই তাইওয়ান785.00
2. রাশিয়াউরাল অঞ্চল, সাইবেরিয়া, উত্তরের কোলা উপদ্বীপ100.00
3. ফিনল্যান্ডসিলিজারভি কেমিরা ওয়েই ও কুওপিও54.00
4. আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রক্যারোলিনা( অধিক অভ্র উৎপাদিত অঞ্চল), রকি ও অ্যাপালিসিয়ন পার্বত্য অঞ্চল, দক্ষিণ ডাকোটা, নিউ হ্যাম্পশায়ার, নিউ মেক্সিকো, উটা, মন্টানা32.60
5. দক্ষিণ কোরিয়াচোসান, ইচন, কেভারকেন25.00
6. কানাডাকানাডিও শিল্ড অঞ্চলের অন্তর্গত অন্টারিও অঞ্চলে সাডবেরি, কারগেরে22.00

এছাড়া ভারত, ব্রাজিল, আর্জেন্টিনা, ফ্রান্স, তাইওয়ান প্রভৃতি জায়গা থেকে অভ্র উত্তোলিত হয়।

ভারতে অভ্রের বন্টন:

ভারত অভ্র উত্তোলনে বিশ্বে অষ্টম স্থান অধিকার করে। ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশ, ঝাড়খন্ড, বিহার, রাজস্থান, বিহার, রাজস্থান অভ্র উত্তোলনে অগ্রগণ্য। ভারত 12.30 হাজার মেট্রিক টন অভ্র উৎপাদন করে। নিম্নে ভারতের অভ্র উৎপাদক কেন্দ্রগুলির অবস্থান লেখা হল –

রাজ্যউৎপাদক অঞ্চল
1. অন্ধ্রপ্রদেশকাভালি, আত্মাকুর, রাপুর ও গুডুর
2. ঝাড়খণ্ডকোডার্মা(বৃহত্তম), ধার, মাসনোডি, তিসরি, ডোমচাঁচ, গিরিডি
3. বিহারসিঙ্গার, চাটাকরি, ডাবুর, রাজৌলি, মহেশপুর, মহেন্দ্রি
4. রাজস্থাননাসিরবাদ, রামসার, মানখন্ড, অমরগড়, পিথাস
5. কেরালাকুইলন জেলা
6. তামিলনাড়ুসালেম, কোয়েম্বাটুর, তিরুচিরাপল্লী
7. মধ্যপ্রদেশবালাঘাট, বস্তার জেলা

FAQ/বহুচর্চিত পশ্ন

ফ্লেক অভ্র কাকে বলে?

ছোট পাতার মতো অভ্রকে ফ্লেক অভ্র বলে।

স্ক্রাপ অভ্র কাকে বলে?

গুড়ো গুড়ো অভ্রকে স্ক্র্যাপ অভ্র বলে।

Leave a Comment

error: Content is protected !!